1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
উপকূলে হবে উঁচু বাঁধ, ৩ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প - ডেইলি টেকনাফ
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৩:০০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামের মৃত্যুতে সাবেক এমপি বদি’র শোক প্রকাশ লকডাউন অমান্য কারিদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে টেকনাফ উপজেলা প্রসাশন Inauguration of office of Scrap Business Association in Teknaf in collaboration with Practical Action পাঠক শুনবেন কি? টেকনাফে প্রাকটিক্যাল এ্যাকশনের সহযোগিতায় স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী সমিতির অফিস উদ্বোধন দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সাবেক এমপি বদি দেশ’বাসীর কাছে দোয়া কামনা টেকনাফ সদর মৌলভী পাড়ার জোসনা বেগম গত ৫দিন ধরে নিখোঁজ,অভিযুক্ত রিয়াজের সন্ধান পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা টেকনাফে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১১ হাজার ৫৫০ টাকা জরিমানা আদায় জনসমর্থনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা করলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান টেকনাফে ৯৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

উপকূলে হবে উঁচু বাঁধ, ৩ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প

  • আপডেট টাইম বৃহস্পতিবার, ৪ জুন, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক

খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট উপকূলে বাঁধ নির্মাণে তিটি প্রকল্প হাতে নিয়েছে সরকার। উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্প ফেজ আকারে প্রকল্প তিনটি বাস্তবায়িত হবে সমন্বিতভাবে।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, তিনটি প্রকল্পের মোট ব্যয় হবে ৩ হাজার ৫৬ কোটি টাকা। প্রথম ফেইজে ১২শ’, দ্বিতীয় ফেইজে ৯শ’ ও তৃতীয় ফেইজে ৯৫৬ কোটি টাকা প্রাথমিক ব্যয় নির্ধারণ করা হয়েছে।

পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম প্রধান মন্টু কুমার বলেন, আম্ফানে দুর্বল হয়ে পড়া বাঁধ পুনঃনির্মাণ দরকার। এই জন্য খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাটে তিনটা প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে। প্রকল্প তৈরির কাজ প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে। একটি প্রকল্পের ব্যয় ১২শ’ কোটি টাকা। অপর দুটি ৯০০ ও ৯৫৬ কোটি টাকা। এসব এলাকার মানুষের জানমাল রক্ষা করতেই প্রকল্পগুলো হাতে নেওয়া হচ্ছে।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, উপকূলের মানুষের দাবি ছিল, টেকসই বেড়িবাঁধ। ২০০৯ সালে আইলার পর ১০ বছরেও তা নির্মিত হয়নি। উপরন্তু, জোড়াতালি দিয়ে বাঁধ সংস্কারে অর্থের অপচয় হচ্ছে।

সাতক্ষীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল খায়ের বলেন, আম্পানে সাড়ে ৩৫ কিলোমিটার বাঁধ ক্ষতির সম্মুখীন। এসব বাঁধ ১৯৬০ থেকে ৬৫ সালের নকশায়। বর্তমানে এসব বাঁধ একেবারেই অকার্যকর। নতুন নকশায় বাঁধ পুনঃনির্মাণ করা হবে। আমরা মন্ত্রণালয়ে চাহিদা পত্র পাঠিয়ছি। বাঁধগুলো ১৫ থেকে ১৬ ফিট উঁচু করার কথা বলেছি। এছাড়া বাঁধগুলোর ওপরে নানা ধরনের গাছ লাগানো হবে।

বাগেরহাট পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের জোয়ারের জলোচ্ছ্বাস ও অতিবর্ষণে উপকূলীয় বাগেরহাটে সাড়ে চার হাজারের অধিক মাছের ঘের ভেসে গেছে। এতে মাছ চাষিদের প্রায় তিন কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে। মাছের ঘের ভেসে যাওয়ায় দুশ্চিন্তায় পড়েছে জেলার হাজার হাজার চাষি।

জলোচ্ছ্বাসে জেলার রামপাল, মোংলা, বাগেরহাট সদর, মোরেলগঞ্জ ও শরণখোলাতে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। নতুন প্রকল্পের আওতায় বাঁধ পুনঃনির্মাণের পাশাপাশি নদীর তীর সংরক্ষণ করা হবে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..