1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
টেকনাফে নির্মিত হচ্ছে ৩০০ শয্যার দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল | ডেইলি টেকনাফ - ডেইলি টেকনাফ
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৭:৫৭ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামের মৃত্যুতে সাবেক এমপি বদি’র শোক প্রকাশ লকডাউন অমান্য কারিদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে টেকনাফ উপজেলা প্রসাশন Inauguration of office of Scrap Business Association in Teknaf in collaboration with Practical Action পাঠক শুনবেন কি? টেকনাফে প্রাকটিক্যাল এ্যাকশনের সহযোগিতায় স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী সমিতির অফিস উদ্বোধন দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সাবেক এমপি বদি দেশ’বাসীর কাছে দোয়া কামনা টেকনাফ সদর মৌলভী পাড়ার জোসনা বেগম গত ৫দিন ধরে নিখোঁজ,অভিযুক্ত রিয়াজের সন্ধান পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা টেকনাফে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১১ হাজার ৫৫০ টাকা জরিমানা আদায় জনসমর্থনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা করলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান টেকনাফে ৯৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

টেকনাফে নির্মিত হচ্ছে ৩০০ শয্যার দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল | ডেইলি টেকনাফ

  • আপডেট টাইম সোমবার, ১১ মে, ২০২০

পিকলু দত্ত | টেকনাফ 

টেকনাফে পৃথকভাবে নির্মিত হচ্ছে ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল। আপাতত করোনা রোগীদের এই দুই হাসপাতালে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে। জাতিসংঘের অভিবাসন সংস্থা আইওএমের অর্থায়নে ১০০ শয্যা বিশিষ্ট ও আইসিডিডিআর’বির অর্থায়নে ২০০ শয্যা বিশিষ্ট পৃথক দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল নির্মাণ করা হচ্ছে।

আইওএম কতৃক হাসপাতালটি তৈরি হচ্ছে টেকনাফের হ্নীলা ইউনিয়নের লেদার অস্থায়ী রোহিঙ্গা শিবিরে। অপরদিকে আইসিডিডিআর’বির কতৃক হাসপাতালটি তৈরি হচ্ছে উপজেলার আইসিডিডিআর’বির ডায়রিয়া হাসপাতাল কমপ্লেক্সে।

হাসপাতাল দুটির অবকাঠামোর কাজ চলছে দ্রুত গতিতে। ইতিমধ্যে আইওএম কতৃক নির্মানাধীন হাসপাতালের কাজ এই মাসের শেষের দিকে শেষ হবে। আগামী মাসের শুরু থেকে পুরোদমে চিকিৎসা সেবা চলবে। অপরদিকে আইসিডিডিআর’বি কর্তৃক হাসপাতালের কাজও চলছে দ্রুত গতিতে। আগামী মাসের মাঝামাঝি সময়ে এই হাসপাতালের কাজ শেষ হতে পারে।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহি অফিসার সাইফুল ইসলাম সাইফ বলেন, টেকনাফের বিপুল স্থানীয় ও রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ভবিষ্যৎ চিন্তা করে পৃথকভাবে ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। স্থানীয়ও রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী উভয়কে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে পৃথক এই দুই হাসপাতালে।

টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিবার ও পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ টিটু চন্দ্র শীল বলেন, টেকনাফের রোহিঙ্গা শিবিরে এখনও পর্যন্ত কোন রোহিঙ্গা করোনায় আক্রান্ত হয়নি। তবে উপজেলাতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬ জন। করোনা ভাইরাস প্রাদুর্ভাবের ভবিষৎ চিন্তা করে টেকনাফে পৃথক দুটি আইসোলেশন হাসপাতাল নির্মাণ করা হচ্ছে। লেদা রোহিঙ্গা শিবিরে আইওএম কতৃক নির্মিত ১০০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে রোহিঙ্গা জনগোষ্টি ছাড়া শিবির সংলগ্ন পার্শ্ববর্তী স্থানীয় জনগোষ্ঠীদের চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে। অপরদিকে আইসিডিডিআর’বি কতৃক নির্মিত ২০০ শয্যা বিশিষ্ট আইসোলেশন হাসপাতালে উপজেলার স্থানীয়দের চিকিৎসা সেবা দেওয়া হবে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..