1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
শনিবার, ২৮ মার্চ ২০২০, ০৩:৪৪ অপরাহ্ন
সর্বশেষ :
অল্প আয়ের মানুষের পাশে অপু বিশ্বাসⓂডেইলি টেকনাফ ঘরভাড়া মওকূফ করে মানবিকতার পরিচয় দিলেন সাবেক এমপি বদি Ⓜ ডেইলি টেকনাফ হায়রে মৃত্যু : সাইফুল ইসলাম Ⓜ ডেইলি টেকনাফ আমরা আছি আপনাদের পাশে,সকলকে খাদ্য পৌঁছে দেবো :সরওয়ার কমল এমপি বিএনপি নেতা সানাউল্লাহ মিয়া আর নেইⓂডেইলি টেকনাফ সাধারণ সর্দি কাশিতে ডা.টিটু চন্দ্র শীলের ব‍্যবস্থাপত্র Ⓜ ডেইলি টেকনাফ গুজবে বিভ্রান্ত না হয়ে করোনা মোকাবেলায় প্রশাসনকে সহযোগিতা করুন : নুর হোসেন বিএ নিস্তব্ধ নিরভ রাতে হঠাৎ আযানের ধ্বনিতে জনমনে কৌতুহলⓂডেইলি টেকনাফ করোনা:প্রশাসনের নির্দেশনা মেনে যানবাহন ও জনমানবশূন্য টেকনাফ Ⓜ ডেইলি টেকনাফ মহান স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা ও করোনা মোকাবেলায় সম্মিলিত সহযোগিতা কামনা Ⓜ ডেইলি টেকনাফ

ভুতুড়ে ভোটে নির্ধারিত হয়েছে ফল?

  • আপডেট টাইম শনিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৮

স্পোর্টস ডেস্কঃ-

এ বছরের ব্যালন ডি’অর জিতেছেন লুকা মদরিচ, ১০ বছরের মেসি-রোনালদোর রাজত্ব ভেঙে নতুন রাজার আসরে বসেছেন মদরিচ। সাংবাদিকদের ভোটে রোনালদো-মেসি দুজনকেই বিশাল ব্যবধানে হারিয়ে ব্যালন ডি’অর জিতেছেন মদরিচ। কিন্তু ব্যালন ডি’অর জেতার পর থেকেই বারবার প্রশ্ন উঠছে সাংবাদিকদের ভোট নিয়ে। ব্যালন ডি’অরে ভোট দিয়েছেন এমন এক সাংবাদিকের কোনো অস্তিত্বই নেই!

দ্বীপরাষ্ট্র কোমোরসের সাংবাদিক হিসেবে ভোট দিয়েছেন আবদু বইনা। তাঁর নামের নিচে থাকা ওয়েবসাইট আল বালাদ কোমোরস ডটকম। কিন্তু মজার ব্যাপার হচ্ছে, সেই ওয়েবসাইটে বর্তমানে কিছুই নেই। এ ওয়েবসাইট আজ থেকে ছয় বছর আগে অর্থাৎ ২০১২ সালেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে। সেই ওয়েবসাইটেই ফটোগ্রাফার হিসেবে কাজ করা তাইমিনৌ আবদৌ বলেছেন, ‘যখন ব্যালন ডি’অর ভোটিংয়ে আল বালাদ কোমোরস ডটকমের নাম দেখি, প্রথমে ভেবেছিলাম ভুলভাল দেখছি। কারণ এই সাইট আজ থেকে ৬ বছর আগেই বন্ধ হয়ে গিয়েছে এবং সেখানে আবদু বইনা নামে কোনো সাংবাদিকও ছিল না। সেখানে দুজন সাংবাদিক ছিল, ফ্রেঞ্চ এডিশনের জন্য আবদুল ইউসুফ আর আরব এডিশনের জন্য শরিফ ওসিন।’

এমনকি কোমোরস জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের প্রধান স্টেফানি আহমেদিও বলেছেন তাঁদের সংগঠনে এই নামের কোনো সাংবাদিক নেই। ‘আবদুল বইনা নামে আমাদের রেকর্ডে কোনো সাংবাদিক নেই। আমি বুঝতে পারছি, ফ্রেঞ্চ ফুটবলের কোনো ভুল হয়েছে। এই নামে কোনো লোক বা এই নামে কোনো ওয়েবসাইট বর্তমানে নেই।’ শুধু সাংবাদিক বা ওয়েবসাইট নয়, কোমোরস নামের দ্বীপরাষ্ট্রের পতাকা পর্যন্ত ভুল দেওয়া হয়েছে। ফ্রেঞ্চ ফুটবলের প্রকাশ করা তালিকায় কোমোরসের পতাকা হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত ব্যবহার করা কোমোরসের পতাকা।

মদরিচের জন্য স্বস্তির ব্যাপার, কোমোরসের সাংবাদিক আবদু বইনার চোখে সেরা খেলোয়াড় হয়েছেন কিলিয়ান এমবাপ্পে। ফ্রান্সের এই তরুণকে সেরা বলে এরপর বইনা বেছে নিয়েছেন মদরিচ, ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো, এডেন হ্যাজার্ড ও মোহাম্মদ সালাহকে। প্রত্যেকের পাওয়া পয়েন্ট যথাক্রমে ৩৪৭, ৭৫৩, ৪৭৪, ১১৯ ও ১৮৮। এ পয়েন্ট থেকে ৬, ৪, ৩, ২, ১ পয়েন্ট বাদ দিলেও অবশ্য খেলোয়াড়দের অবস্থানের নড়চড় হচ্ছে না। এতে অবশ্য সব সমস্যা উড়িয়ে দেওয়া যায় না।

কিছুদিন আগে অন্য আরেক সাংবাদিক অভিযোগ করেছিলেন যে তাঁর ভোট উল্টো করে গণনা করা হয়েছে। এবারের ব্যালন ডি’অর বিতর্কের জন্ম দিয়েই যাচ্ছে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..