1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
যাঁদের মৃত্যু নেই, তাঁদের একজন - ডেইলি টেকনাফ
শনিবার, ১৬ জানুয়ারী ২০২১, ০১:০৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সাবরাং ইউ,পি ছাত্রলীগের সাঃসম্পাদক নজরুল ইসলামের খোলা চিঠি টেকনাফে যুবলীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা,আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের প্রতিবাদ ও নিন্দা টেকনাফ উপজেলা আ.লীগ সাংগঠনিক সম্পাদক আলহাজ্ব এজাহার মিয়ার নববর্ষের শুভেচ্ছা সাবরাং ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি আবুল কালামের নতুন বছরের শুভেচ্ছা অসুস্থ ছেনোয়ারার চিকিৎসার জন্য ৫০ হাজার টাকা দান করলেন টেকনাফ পৌর মেয়র হাজ্বী মোহাম্মদ ইসলাম ঈদগাঁওতে সাংবাদিককে মামলায় জড়ানোর প্রতিবাদে দুই বাংলা অনলাইন সাংবাদিক ফোরামের মানববন্ধন টেকনাফ পৌরসভায় বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে সাড়ে ৩৫ কোটি টাকার প্রকল্প পরিদর্শন করেন শেখ মুজাক্কা জাহের বঙ্গোপসাগরে অভিযান চালিয়ে ২লাখ ৭০হাজার ইয়াবাসহ ট্রলার জব্দ সাবরাং ইউনিয়ন কৃষকলীগের ১-৯ ওয়ার্ডের কমিটি অনুমোদন সভা সম্পন্ন টেকনাফে র‍্যাবের গুলিতে রোহিঙ্গা মাদক কারবারীর প্রাণহানি

যাঁদের মৃত্যু নেই, তাঁদের একজন

  • আপডেট টাইম রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০

২০১২ সালে বন্ধুর বাসায় বেড়াতে গিয়েছিলাম সিরাজগঞ্জ। সে ছাত্র লীগের নেতা ছিল।তার সাথে দাওয়াত খেতে গেলাম।খাবার দিল পারিবারিক ডাইনিং এ।টেবিলের সাইডের চেয়ারে আমার বন্ধু। অন্য সাইডে জেলা ছাত্রলীগের নেতা।পাশে আমি ।

আমার ডান পাশে একজন মুরব্বী,ভদ্রলোক। চেহারা আর ডাইনিং টেবিলে বসা দেখে বুঝতে দেরী হল না উচ্চ ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন লোক তিনি এবং সম্ভ্রান্ত পরিবারের মানুষ। ডান দিকে তাকাতেই তিনি আমার নাম বাড়ী পেশা বলে দিলেন। হাত দেখে বলেন নি।আগেই আমার বন্ধুর নিকট থেকে জেনে নিয়েছেন কে তার বাসায় মেহমান এবং কে তার ডান পাশে বসে খাবেন।

আমিও ডান দিকে তাকিয়ে চিনে ফেললাম।কৌশলে মেহমান এর নাম বলে সম্মোধন দেখে অনেকক্ষণ তাকিয়ে থাকলাম।মনে হল অনেক দিনের চেনা ।পরিচিত। স্বজন।আপন জন।প্রতিবেশী। শুভাকাঙ্ক্ষী।খাবার সময় ভদ্রলোক এক টুকরো করে  মাংস উঠায়ে দিলেন তিন জন কে ।আমি তো আরো অবাক। মানে আশ্চর্য।

অনেক পরিচিত মনে হল ।কিন্তু  শুধু টিভিতে দেখেছি।এক বার নিকট থেকে দেখেছিলাম তাড়াশের নওগাঁ বাজার পলাশ ডাংগা যুবশিবির এর আলোচনা অনুষ্ঠান এ।
খাবার শেষ ।চা খেয়ে দোয়া নিয়ে চলে আসব ।তখন আমার বন্ধু কথায় কথায় বলল যে আমি পুলিশ। সংগে সংগে আমার ইউনিট প্রধান কে ফোন করে বলে দিলেন আমি সেদিন তার দুপুরে র মেহমান ছিলাম। আমকে যেন কড়াভাবে নিয়ন্ত্রণ করেন।

সেই দিন প্রথম ও শেষ দেখা।মনে রেখেছি আজও ।ভবিষ্যতে ও মনে থাকবে।মুল কথা হল এই মাপের মানুষ গুলি চিরদিন বাঁচে।তাঁদের জন্মদিন আছে মৃত্যু দিবস নেই।তাঁরা মরে না চির অমর।আমাদের মত মানুষের মাঝে, এমনই সব আচরনে বেঁচে থাকে যুগান্তরে ।
তাঁরা দেশের, মাতৃভূমি র জন্য ই আসে ।তাঁরা আসলে চলে যায় না ।তাদের শুধু বাস্তব মৃত্যু হয়।
কিন্তু আচরনে বেঁচে থাকে এখনও আছে।

তাঁর বাবাও দেশের সম্পদ ছিলেন। তিনিও সেটি প্রমান করলেন। দেশ ও তাঁকে সম্মান দিয়েছে।

আমি সেই সম্মানিত মানুষ বাংলাদেশের অন্যতম জাতীয় নেতা মোহাম্মদ  নাসিম এর মৃত্যু যে শোক প্রকাশ করছি।মরহুমের মাগফিরাত কামনা করছি। শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করছি।

পাঠিয়েছেন-
মোঃ ইমাউল হক পিপিএম

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..