1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
সঠিক তদন্তপূর্বক মিথ্যা মামলা থেকে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের বিবৃতি - ডেইলি টেকনাফ
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০৪:৫০ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামের মৃত্যুতে সাবেক এমপি বদি’র শোক প্রকাশ লকডাউন অমান্য কারিদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে টেকনাফ উপজেলা প্রসাশন Inauguration of office of Scrap Business Association in Teknaf in collaboration with Practical Action পাঠক শুনবেন কি? টেকনাফে প্রাকটিক্যাল এ্যাকশনের সহযোগিতায় স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী সমিতির অফিস উদ্বোধন দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সাবেক এমপি বদি দেশ’বাসীর কাছে দোয়া কামনা টেকনাফ সদর মৌলভী পাড়ার জোসনা বেগম গত ৫দিন ধরে নিখোঁজ,অভিযুক্ত রিয়াজের সন্ধান পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা টেকনাফে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১১ হাজার ৫৫০ টাকা জরিমানা আদায় জনসমর্থনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা করলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান টেকনাফে ৯৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

সঠিক তদন্তপূর্বক মিথ্যা মামলা থেকে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের নাম প্রত্যাহারের দাবি জানিয়ে টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের বিবৃতি

  • আপডেট টাইম বুধবার, ১৭ জুন, ২০২০

প্রেস বিজ্ঞপ্তি:-

বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ, টেকনাফ উপজেলা শাখার কাউন্সিলরদের প্রত্যেক্ষ ভোটে টানা দুই বার নির্বাচিত সাঃ সম্পাদক, সাবরাং ইউনিয়ন আ’লীগের নবনির্বাচিত সাঃ সম্পাদক, সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান নুর হোসেন এর বিরুদ্ধে গত ১৫ই জুন বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত একটি ইয়াবা সংক্রান্ত সংবাদ আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। প্রচারিত ও প্রকাশিত সংবাদে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের বাড়ি থেকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ৪০হাজার পিস ইয়াবা বড়ি উদ্ধারের কথা উল্ল্যেখ করা হয়। উক্ত ঘটনায় নুর হোসেন চেয়ারম্যানকে ১নং আসামী করে একটি মামলা করা হয়েছে বলে প্রচারিত ও প্রকাশিত সংবাদের মাধ্যমে আমরা জানতে পারি।
যা সম্পূর্ণ মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও সাজানো মামলা বলে আমরা মনে করি। আমরা এহেন মিথ্যা মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
নুর হোসেন চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আওয়ামী পরিবারের সন্তান। তাঁর পিতা হাজী আমির হামজা ১৯৭১সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক। আওয়ামী পরিবারে জন্মগ্রহণ করার সুবাদে তিনি ছাত্র জীবন থেকে আওয়ামী রাজনীতির সাথে জড়িয়ে পড়েন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শকে লালন ও ধারণ করে এবং রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার এক নিষ্ট কর্মী হিসেবে তিনি ছাত্রলীগ ও যুবলীগের বিভিন্ন ইউনিট ও উপজেলা পর্যায়ে গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্বপালন করেন। বর্তমানে তিনি সাবরাং ইউনিয়ন আ’লীগের নবনির্বাচিত সাঃ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন।
বঙ্গবন্ধুর সুযোগ্য কন্যা, দেশরত্ন শেখ হাসিনা মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে মাদক নির্মূলে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করায় সাবরাং ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও সাবরাং মাদক নির্মুল কমিটির সভাপতি নুর হোসেন অত্র ইউনিয়নকে মাদকমুক্ত করতে জনসচেতনতাসহ সামাজিক আন্দোলনের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনায় সহযোগিতা করে এসেছেন। গতবছর সাবরাং আছারবনিয়া ও মন্ডল পাড়া থেকে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশকে পাচারকারীসহ বিপুল পরিমাণ ইয়াবা বড়ি আটকে তিনি সহযোগিতা করেছিলেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে ইয়াবার বিরুদ্ধে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ ঘোষণা করা নুর হোসেন চেয়ারম্যান গত ১৪ই জুন সাবরাং মন্ডল পাড়া ও পার্শ্ববর্তী এলাকা বেইঙ্গা পাড়া থেকে স্থানীয় দফাদার ও চৌকিদারকে সঙ্গে নিয়ে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা আটকে টেকনাফ মডেল থানার পুলিশকে সহযোগিতা করেন।
অথচ ইয়াবা আটকের পরদিন ১৫ই জুন সন্ধ্যার দিকে বিভিন্ন অনলাইন নিউজ পোর্টাল ও স্যাটেলাইট চ্যানেলে প্রচারিত ও প্রকাশিত সংবাদে আমরা ইয়াবা উদ্ধার ঘটনার বিপরীত চিত্র দেখতে পায়। যে জনপ্রতিনিধি ইয়াবা উদ্ধার করতে অসুস্থ শরীর (টাইফয়েড) নিয়ে নিরলসভাবে পুলিশকে সহযোগিতা করেছেন, সেই নুর হোসেন চেয়ারম্যান কিনা উক্ত ইয়াবা উদ্ধার মামলার ১নং আসামী! যা দেখে আমরা হতবিহবল হয়ে পড়ি।
প্রকৃতপক্ষে নুর হোসেন চেয়ারম্যান রাজনৈতিক ও জনপ্রতিনিধিত্ব করার পাশাপাশি দেশরত্ন শেখ হাসিনার ঘোষিত মাদকের বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বাস্তবায়নে সাহসিকতার সাথে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতা করায় ইয়াবার সাথে জড়িত একটি কুচক্রি মহল তাঁর জনপ্রিয়তা, ধারাবাহিক সফলতা ও রাজনৈতিক উত্থানে ঈর্ষান্বিত হয়ে তাকে মানসিকভাবে বিপর্যস্ত এবং সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে ইমেজ সংকটে ফেলার ষড়যন্ত্রের নীল নকশা বাস্তবায়নে প্রশাসনকে ভুল তথ্য দিয়ে সাজানো ও মিথ্যা মামলায় জড়িয়ে দিয়েছে বলে আমরা মনে করি।
আমরা এহেন মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও সাজানো মামলার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
পাশাপাশি ইয়াবা উদ্ধার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করণে সঠিক তদন্তপূর্বক মিথ্যা ও সাজানো মামলা থেকে নুর হোসেন চেয়ারম্যানের নাম প্রত্যাহার করে প্রকৃত আসামী ও ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজি) মহোদয় ও জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) মহোদয়ের নিকট জোর দাবী জানাচ্ছি।
বিবৃতিদাতারা হলেন- টেকনাফ উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আলম, সহ সভাপতি জিয়াউর রহমান জিয়া, কাদের হোসেন, মুজিবুল হক মুজিব, তোয়াক্কুল হোসেন চৌধুরী, মোহাং তৈয়ুব, যুগ্ম সাঃ সম্পাদক ফজলুল কবির, গিয়াস উদ্দিন, এবাদতুর রহিম বাদল, সাংগঠনিক সম্পাদক জামাল সরওয়ার, রেজাউল করিম রেজা, আবুল কালাম আবু, মাস্টার আবদুল করিম প্রমুখ।

বার্তা প্রেরক:-
আবদুল মতিন ডালিম
দপ্তর সম্পাদক
টেকনাফ উপজেলা যুবলীগ।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..