1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
সাগরে জেলেদের ৬৫দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে,আছে মাত্র কয়েকদিন !! - ডেইলি টেকনাফ
সোমবার, ১২ এপ্রিল ২০২১, ০২:৫৩ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামের মৃত্যুতে সাবেক এমপি বদি’র শোক প্রকাশ লকডাউন অমান্য কারিদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে টেকনাফ উপজেলা প্রসাশন Inauguration of office of Scrap Business Association in Teknaf in collaboration with Practical Action পাঠক শুনবেন কি? টেকনাফে প্রাকটিক্যাল এ্যাকশনের সহযোগিতায় স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী সমিতির অফিস উদ্বোধন দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সাবেক এমপি বদি দেশ’বাসীর কাছে দোয়া কামনা টেকনাফ সদর মৌলভী পাড়ার জোসনা বেগম গত ৫দিন ধরে নিখোঁজ,অভিযুক্ত রিয়াজের সন্ধান পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা টেকনাফে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১১ হাজার ৫৫০ টাকা জরিমানা আদায় জনসমর্থনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা করলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান টেকনাফে ৯৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

সাগরে জেলেদের ৬৫দিনের নিষেধাজ্ঞা শেষ হচ্ছে,আছে মাত্র কয়েকদিন !!

  • আপডেট টাইম বুধবার, ১০ জুলাই, ২০১৯

মিজানুর রহমান,মোঃআলমগীর। বঙ্গোপসাগরে ৬৫ দিন সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত শেষ হচ্ছে,আছে মাত্র কয়েকদিন ।চলতি মাসের ২৩ তারিখ পর্যন্ত ৬৫ দিন মৎস্য সম্পদের সুরক্ষায় বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট এ সিদ্ধান্ত নেন। এতে চরম দুশ্চিন্তা আর ৬৫দিনের অনিশ্চিয়তায় পড়েন জেলে ও মৎস্যজীবীরা।

বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট থেকে জানা গেছে, মে মাসের শেষের দিক থেকে জুলাই মাস পর্যন্ত বঙ্গোপসাগরে মাছসহ বিভিন্ন সামুদ্রিক প্রাণীর প্রজননকাল হওয়ায় সাগরের মাছসহ প্রাণিজ সম্পদ রক্ষায় ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।
বঙ্গোপসাগরের পাশাপাশি টেকনাফে নাফ নদী ও নদীর মোহনা এই নিষেধাজ্ঞার আওতায় রয়েছে।তাই সাগরে মাছ ধরার সব ফিশিং ট্রলার কক্সবাজারের উপকূলে ফিরে এসেছে এবং টেকনাফেও।
স্থানিয়ভাবে জেলেদের সাথে কথা বলে জানা যায়-“একজন জেলে সারা বছর ফিশিং ট্রলারের জেলের কাজ করে কোনোমতে সংসার চালায়। এতে প্রতি বছর প্রায় দুর্ঘটনার শিকার- যেমন জলদস্যুতা, ঘূর্ণিঝড়সহ নানা সমস্যায় পড়ে সংসার জীবনে তারা আর ঘুরে দাঁড়াতে পারেন না।তাই সামনের বেকার দিনগুলোতে কীভাবে তারা সংসার চালাবে তাই চিন্তায় কাটে দিন।তার উপর রমজান ও ঈদুল ফিতরের সাংসারিক খরচের অতিরিক্ত চাপ,সব মিলিয়ে রীতিমত উদ্ভেগ উৎকন্ঠায় ছিলেন গোটা জেলে পরিবারগুলো।

সাবরাং আছার বনিয়ার কলিম উল্লাহ উপজেলা মৎস কার্ড ধারী জেলে জানায়-দেশের ও দেশের মৎস প্রাণীজ সম্পদ রক্ষায় ৬৫দিন দেয়া সরকারের গৃহীত সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানাই,প্রতিবেদকের কেন’র জবাবে কলিম উল্লাহ প্রকাশ ডালু বলেন-নিষেধের ৬৫দিন সাগরের ডিম ওয়ালা মা মাছেরা অবাধ বিচরন করে পছন্দমত জায়গায় প্রজনন দেবে সে সময় যদি বোট ট্রলার দিয়ে ঘেটে দেয়া হয় তাহলে সুস্থ প্রজনন ব্যাহত হবে মা মাছ হয়ত দেশের জলসীমার বাইরে গিয়ে ডিম ছাড়বে,এটা দেশের জন্য যেমন ক্ষতি জেলেদের জন্যও ক্ষতি,কিন্তু আমাদের কিছু জেলে ভাইয়েরা সেটা বুঝেনা।
খুরের মূখে মৎস আহরনকারী করাছি পাড়ার আলম ও ইসমাইল বলেন আমরা একটু কয়েকটা দিন কষ্ট করে সংসার চালিয়ে নেব তবু সরকারের সিদ্ধান্তই দেশের জন্য জনগণের জন্য মঙ্গলের।এ সময়টুকু ও আল্লাহ রিজিকের ব্যবস্থা করবেন।

ডেগিল্যার বিলের জেলে নাফ নদীর কার্ডধারী জাফর বলেন-৬৫দিনের নিষেধাজ্ঞা দিলেও আমরা অনেক খুশী যে সরকার জেলেদের জন্য বিকল্প পূনর্বাসন হিসাবে খাদ্য সহযোগিতা করেছেন।তাই প্রধানমন্ত্রীও সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সকল কর্মকর্তার প্রতি ধন্যবাদ জানান।
আগামি২৩জুলাই আবার জেলেরা সাগরে মৎস আহরনে যেতে পারবে তাই অনেকের চোখে মুখে খুশীর আভাস দেখা যায়।

কক্সবাজার জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এস.এম খালেকুজ্জামান বলেন, ‘আগে সমুদ্রে বিভিন্ন ধরনের বড় বড় মাছ পাওয়া যেত, এখন আর যায় না। এসব মাছের প্রজনন সময় শুরু হয়েছে। তাই ২০ মে থেকে ২৩ জুলাই পর্যন্ত ৬৫ দিন বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে। জেলায় ৪৮ হাজার ৩৯৩ জন নিবন্ধিত জেলে রয়েছে। এছাড়াও অনিবন্ধিত জেলে রয়েছে অনেক। বেকার হয়ে পড়া জেলেদের বিকল্প আয়ের ব্যবস্থাসহ সব ধরনের সাহায্য সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

মিজানুর রহমান মিজান।
তথ্য ও সহযোগিতায়ঃ মোহাম্মদ আলমগীর

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..