1. engg.robel.seo@gmail.com : DAILY TEKNAF : DAILY TEKNAF
  2. bandhusheramizan@gmail.com : Mizanur Rahman : Mizanur Rahman
  3. engg.robel@gmail.com : The Daily Teknaf News : Daily Teknaf
‘২০০তম ওয়ানডে নিয়ে বিশেষ কোনো অনুভূতি নেই’ - ডেইলি টেকনাফ
মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:৩৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ :
ঢাকা-১৪ আসনের এমপি আসলামের মৃত্যুতে সাবেক এমপি বদি’র শোক প্রকাশ লকডাউন অমান্য কারিদের বিরুদ্ধে অভিযানে নেমেছে টেকনাফ উপজেলা প্রসাশন Inauguration of office of Scrap Business Association in Teknaf in collaboration with Practical Action পাঠক শুনবেন কি? টেকনাফে প্রাকটিক্যাল এ্যাকশনের সহযোগিতায় স্ক্র্যাপ ব্যবসায়ী সমিতির অফিস উদ্বোধন দ্বিতীয়বার করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে সাবেক এমপি বদি দেশ’বাসীর কাছে দোয়া কামনা টেকনাফ সদর মৌলভী পাড়ার জোসনা বেগম গত ৫দিন ধরে নিখোঁজ,অভিযুক্ত রিয়াজের সন্ধান পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা টেকনাফে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ১১ হাজার ৫৫০ টাকা জরিমানা আদায় জনসমর্থনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা করলেন নুর হোসেন চেয়ারম্যান টেকনাফে ৯৮ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র দাখিল

‘২০০তম ওয়ানডে নিয়ে বিশেষ কোনো অনুভূতি নেই’

  • আপডেট টাইম শনিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৮

ওয়ানডে ক্রিকেটের ৪৭ বছরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ৪ হাজার ৭০টি ম্যাচ। বিশ্বক্রিকেট দেখেছে ২ হাজার ৪৭২ জন ওয়ানডে ক্রিকেটারকে।

স্পোর্টস ডেস্কঃ-

১৯৭১ সালের ৫ জানুয়ারি। মেলবোর্নে স্বাগতিক অস্ট্রেলিয়ার মুখোমুখি ক্রিকেটের জনক দেশ ইংল্যান্ড। ওটাই ছিল ক্রিকেট ইতিহাসের প্রথম ওয়ানডে ম্যাচ। অস্ট্রেলিয়ার ৫ উইকেটে জয় পাওয়া ওই ম্যাচের পর ওয়ানডে ক্রিকেট পাড়ি দিয়েছে ৪৭ বছর। দীর্ঘ এই ৪৭ বছরে অনুষ্ঠিত হয়েছে ৪ হাজার ৭০টি ওয়ানডে। বিশ্বক্রিকেট দেখেছে ২ হাজার ৪৭২ জন ওয়ানডে ক্রিকেটারকে।

সংখ্যাটি নেহায়েত কম নয়। কিন্তু আশ্চর্যের বিষয় হচ্ছে ২ হাজার ৪৭২ জন ক্রিকেটারের মধ্যে মাত্র ৭৭ জন ক্রিকেটার ২০০ ওয়ানডে খেলার মাইলফলকে পৌঁছাতে পেরেছেন। ৭৮তম ক্রিকেটার হিসেবে তালিকায় আরও একটি নাম যোগ হচ্ছে, মাশরাফি বিন মুর্তজা। বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২০০টি ওয়ানডে খেলার মাইলফলক ছুঁতে যাচ্ছেন ১৭ বছর ধরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলা মাশরাফি।

তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে ৯ ডিসেম্বর মিরপুরে উইন্ডিজের মুখোমুখি হচ্ছে বাংলাদেশ। এটা মাশরাফির কারিয়ারের ২০০তম ওয়ানডে। তবে বাংলাদেশের জার্সিতে এটা তার ১৯৭তম ওয়ানডে। ২০০৭ সালে এশিয়া একাদশের হয়ে আফ্রিকা একাদশের বিপক্ষে দুটি ওয়ানডে খেলেছিলেন বাংলাদেশের একমাত্র বোলার হিসেবে এই ফরম্যাটে ২৫০’র বেশি উইকেট নেওয়া ডানহাতি এই পেসার।

বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে ২০০তম ওয়ানডে খেলতে যাচ্ছেন। অনুভূতিটা কেমন? বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়ক প্রিয়.কমকে বলেন, ‘২০০তম ওয়ানডে নিয়ে বিশেষ কোনো অনুভূতি নেই। তবে ভালো লাগছে। ভালো লাগবে একটা সময়, যখন অবসর নেব, বাংলাদেশের হয়ে ২০০ ম্যাচ খেলেছে তাদের লিস্টে থাকব, ওটা দেখে ভালো লাগবে। এটাই অনভূতি বলতে পারেন। এর চেয়ে বিশেষ কিছু না। আমার কাছে সব ম্যাচই সমান। কালকের ম্যাচটিও তেমন। ম্যাচে আমরা কেমন করি সেটা বড় বিষয়।’

২০০তম ম্যাচ খেলার পথে হাজারো বাঁধা পেরোতে হয়েছে ২০০১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখা মাশরাফিকে। জয় করতে হয়েছে কতো না ইনজুরি। বারবার ইনজুরির ছোবলে রাতের পর পর রাত পার করতে হয়েছে অসহ্য যন্ত্রণায়। দুই হাঁটুতে সাতটি অস্ত্রোপচারে ১৭ বছরের ক্যারিয়ার থেকে হারিয়ে গেছে কমপক্ষে পাঁচ বছর। যে পাঁচ বছর খেলতে পারলে নড়াইল এক্সপ্রেসের সাফল্যের মুকুটে যোগ হতে পারতো আরও কয়েকটি পালক, সেটা বলাই বাহুল্য।

১৮ বছরের কৌশিক নামের সদ্য যুবক যে গতি আর আগ্রাসন নিয়ে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রেখেছিলেন, ক্রমাগত ইনজুরির ছোবলে সেটা ধীরে ধীরে ম্রীয়মান হতে থাকে। স্বভাবতই এমন লম্বা ক্যারিয়ার আশা করেননি মাশরাফি। যে কারণে মাইলফলক ছোঁয়ার চেয়ে লাল-সবুজ জার্সিতে এখনও খেলে যেতে পারাটাকেই বড় করে দেখেন তিনি।

এমন মাইলফলকে পৌঁছাবেন, কখনও ভেবেছিলেন? মাশরাফি বলেন, ‘না, ক্যারিয়ার তো আরও আগে শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল। ওই দিক থেকে একটা অর্জন হয়তো আছে যে, এখনও খেলতে পারছি বা খেলে যাচ্ছি। আর যেটা বললাম, একটা সময়ে গিয়ে যখন মনে পড়বে ২০০ ওয়ানডে খেলেছি, ভালো লাগবে। আমার মনে হয় এর চেয়ে বেশি ভালো লাগার মতো এখানে কিছু নেই।’

মাইলফলক বা এই জাতীয় কোনো ব্যাপার নাকি স্পর্শই করে না মাশরাফিকে। তার ভাষায়, ‘আমি আগেও বলেছি, এগুলো আমাকে স্পর্শ করে না। এসব আমার কাছে এতো গুরুত্বপূর্ণও না। গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে কালকের ম্যাচটা জেতা। একদিক থেকে ভালো লাগছে যে, বাংলাদেশের হয়ে ওয়ানডে ফরম্যাটে অন্তত ২০০তম ম্যাচ হচ্ছে। কিন্তু কালকের ম্যাচের ওপর আর কিছুর গুরুত্ব একেবারেই নাই। এটা চিন্তা করে খেলার সুযোগ নেই।’

২০০তম ওয়ানডে খেলার তালিকায় বাংলাদেশ থেকে আরও কয়েকজন ক্রিকেটারের নাম উঠবে শিগগিরই। মাশরাফির পরই আছেন মুশফিকুর রহিম। উইকেটরক্ষক এই ব্যাটসম্যান বাংলাদেশের হয়ে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ১৯৫টি ম্যাচ খেলেছেন। বিশ্বের অন্যতম সেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের ঝুলিতে জমা হয়েছে ১৯২টি ওয়ানডে খেলার অভিজ্ঞতা। ১৮৩টি ম্যাচ খেলা তামিমও আছেন এই পথে।

আপনার মন্তব্য দিন

নিউজটি শেয়ার করুন..

এ জাতীয় আরো খবর..